1. mznrs@yahoo.com : MIZANUR RAHMAN : MIZANUR RAHMAN
  2. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
রবিবার, ০৭ অগাস্ট ২০২২, ০৯:১৭ অপরাহ্ন

শুদ্ধ ভাষায় কথা

  • প্রকাশিত : রবিবার, ১৭ মে, ২০২০
  • ৪২৪ জন সংবাদটি পড়েছেন।

আব্দুল্লাহ আফনান

কোনো কথা জানা, মুখস্থ করা আর বুঝে নেওয়া এক বিষয় না। তদ্রুপ কোনো বিষয় বুঝে যাওয়া আর `হৃদয় দিয়ে বুঝা’, উপলব্ধি হওয়া, `হৃদয়ঙ্গম’ হওয়া এক কথা না। অনেক কথাই আমরা মুখস্থ করি বহু আগে, কিন্তু বুঝে আসে বহু পরে। এমনই ভাবে অনেক কথা আমরা বুঝি অনেক অনেক আগে কিন্তু কথাটি পরিপূর্ণ উপলব্ধি হয় বহু বছর পরে। আর কতশত হাজার কথা তো উপলব্ধি করার ফুরসতই হয় না আমাদের ছোট্ট এ জীবনে!

বহুদিন পর আদীব হুজুর দা.বা. (আবু তাহের মিসবাহ) এর একটি কথা আমি হৃদয় দিয়ে উপলব্ধি করতে পারছি। অথচ কথাটি আমি আরো অনেক আগেই বহুবার পড়েছি। কথাটির ওপর আমল করেছি, অন্যকে দাওয়াতও দিয়েছি। কিন্তু তারপরও আজকের মত করে আগে অনুভব করতে পারিনি।

আদীব হুজুর অনেক স্থানে, অনেকভাবেই কথাটি বলে থাকেন- “শুদ্ধ ভাষায় কথা বলা, সাহিত্যের অর্ধেক।” শুনতে খুবই সাদামাটা মনে হলেও কথাটি সত্য, বাস্তব সত্য।

ফার্সিখানার বছর বলতে গেলে লেখালিখির হাতেখড়ি। ঐ সময় হুজুর শুধু পুষ্প পড়তে বলতেন। আদীব হুজুরের লেখায় বেশ প্রভাবিত ছিলাম তখন।ওনার মতো লিখতে চাইতাম সবসময়। পুষ্পে পাওয়া প্রতিটি নির্দেশনা মেনে চলার চেষ্টা করতাম। নিয়মিত রোজনামচাও লিখতাম। (আদীব হুজুর লিখেন `রোযনামচা’। তাই আগে আমিও ওটা লিখতাম)তো ঐ সময় আমরা কয়েকজন নিয়ত করেছিলাম, আমরা সবসময় শুদ্ধ ভাষায় কথা বলবো। ডায়েরি খুঁজলে দিন তারিখসহ পাওয়া যাবে নিশ্চিত।
ঐ সময় প্রচন্ড উৎসাহ ছিল। কিছুটা অহমিকাও ছিল তখন। দেখা গেল অনেক উৎসাহ নিয়ে কাজ শুরু করলেও বেশিদিন টিকেনি। ব্যাপারটা এমনই৷ খালি ঢুল বাজে বেশি। ঐ সময় শুদ্ধ কিভাবে বলতে হয় সেটাও জানতাম না৷ শুধু ভাবতাম ‘চ, ছ’ দুটোকে খুব উচ্চারণ করাই বুঝি শুদ্ধ ভাষায় কথা বলা। অনেকের হাসির পাত্রও হয়েছি তখন। কখনো কখনো নিজেই নিজের ওপর হাসতাম।

অবশ্য এর কিছুদিন পর আল্লাহর রহমতে অনেক উপকার হয়েছে।

আজ বহুদিন পর আদীব হুজুরের কথাটি বারবার মনে পড়ছে। কথাটির গভীরতা বুঝে আসছে। কত প্রয়োজনীয় একটা অনুশীলন এটি তা উপলব্ধি করতে পারছি। যাক, ত্যানা না প্যাঁচিয়ে সোজাসাপটা বলি।

মুখে না বললেও লেখার সময় কিন্তু আমরা সবসময়ই শুদ্ধ ভাষা ব্যবহার করি।আমরা “কথা বলি `মাতৃভাষায়’ তবে লিখি শুদ্ধ ভাষায়।”
এই লেখালিখি করতে গিয়ে অনেক সময়ই আমি সঠিক, সুন্দর যথাযথ শব্দের জন্য থমকে গিয়েছি, আটকে পড়েছি বুহবার। লেখার ধারাবাহিকতায় ছন্দপতন হয়েছে প্রচুর। এর কারণ হিসেবে আমার এখন এটাই মনে হয় যে শুদ্ধ ভাষায় কথা না বলা। বিষয়টা আপনাকে উদাহরণ দিয়ে বুঝাই-

মনে করুন আপনি রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন। হঠাৎ পথে দেখলেন এক লোক তার বউকে পিটাচ্ছে, প্রহার করছে।খুবই ভয়াবহ অবস্থা!
তো আপনি যখন আপনার বন্ধুর কাছে গিয়ে ঘটনার বর্ণনা দিবেন, (মুখে বলবেন) তখন (আপ্নে মমিসিংয়ের মানুশ অইলে) এভাবে বলবেন- ” দুস্তো, আইজকে রাস্তা দিয়া আইবার সময় দেহি, এক ব্যাডা তার বউরে পিডাইতাছে। কি মাইররে বাবা! ধুম্মুর ধৃুমমুর কিলাইতাছে। ঘুইষ্সায়া এক্কেবারে ফাডায়ালতাসে,চুলো ধইরা টাইন্না চুল ছিরালতাসে। এক্কেবারে বিদিকিচ্ছা অবস্তা। বউরে মাইনসে এইবা মাইর দে, আজকেই দেখলাম!” (ঘটনার ভয়াবহ বুঝাতে, হতে পারে উত্তেজিত অবস্থায় বলার সময় আপনি আপনার বন্ধুকেও এক দুটো কিল ঘুষি দিতে পারেন।)

লক্ষ্য করুন, আপনি কিন্তু আপনার মনের পুরো ভাব প্রকাশ করেছেন খুব সহজেই। এবং আপনার বন্ধুর কাছেও ঘটনাটি পরিস্কার। আপনি যা বুঝাতে চেয়েছেন তা সে খুব ভালোভাবে বুঝতে পেরেছে। এখন আপনি লিখতে বসুন। এই ঘটনাটাই আপনার বন্ধুর কাছে বর্ণনা করুন। দেখুন আপনি শব্দ সঙ্কটে পড়েন কি না!

এরকম উদাহরণ আরো বহু দেওয়া যাবে। তো আপনি যদি সবসময় শুদ্ধ ভাষায় কথা বলতে অভ্যস্ত হোন, তাহলে এটা আপনার জন্য কোনো ব্যাপারই না। আপনি তারচেয়েও মজা লাগিয়ে ঘটনা বলতে পারবেন, একদম শুদ্ধ ভাষাতেই।

সব কথার মূলে যে কথাটা বুঝাতে চাচ্ছি, নিয়মতি শুদ্ধ ভাষায় কথা বললে লেখার সময় অনেক শব্দ আপনার কলমে অটোমেটিক চলে আসবে। তখন আর আপনার লেখার ধারাবাহিকতায় ছন্দপতন হবে না। অনায়েসে অনেক শব্দ আপনার কলমের ডগায় এসে যাবে।

তাছাড়া শুদ্ধ ভাষায় কথা বলাটা সুন্নতও বটে। হযরত আবু সাঈদ খুদরী রা. থেকে বর্ণিত একটি হাদিসে আছে, রাসূল সা. বলেছেন- “আমি আরবের সবচেয়ে বিশুদ্ধভাষী, আমার জন্ম কুরাঈশে।” (হাদিসটি এসো কলম মেরামত করি বইয়ের শুরুতে পড়েছিলাম। রেফারেন্স জানা নেই।) তাছাড়া অপর আরেকটি হাদিস দেখুন-

حَدَّثَنَا أَبُو بَكْرِ بْنُ أَبِي شَيْبَةَ، حَدَّثَنَا أَبُو الأَحْوَصِ، عَنْ مَنْصُورٍ، عَنْ رِبْعِيٍّ، قَالَ حَدَّثَنَا رَجُلٌ، مِنْ بَنِي عَامِرٍ أَنَّهُ اسْتَأْذَنَ عَلَى النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم وَهُوَ فِي بَيْتٍ فَقَالَ أَلِجُ فَقَالَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم لِخَادِمِهِ ‏ “‏ اخْرُجْ إِلَى هَذَا فَعَلِّمْهُ الاِسْتِئْذَانَ فَقُلْ لَهُ قُلِ السَّلاَمُ عَلَيْكُمْ أَأَدْخُلُ ‏”‏ ‏.‏ فَسَمِعَهُ الرَّجُلُ فَقَالَ السَّلاَمُ عَلَيْكُمْ أَأَدْخُلُ فَأَذِنَ لَهُ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم فَدَخَلَ ‏.‏

রিবঈ (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ:

তিনি বলেন, বনী ‘আমিরের এক লোক আমাকে বলেন, তিনি রাসূল (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর ঘরে অবস্থানকালে তাঁর নিকট অনুমতি চেয়ে বলেছিলেন, `আ আলিজু?’ (আমি কি আসবো?) রাসূল সল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম তার খাদেম কে বললেন, তুমি বের হয়ে তার নিকট গিয়ে তাকে অনুমতি নেয়ার নিয়ম শিখিয়ে দাও। তুমি তাকে বলো, আস্‌সালামু ‘আলাইকুম, `আ আদখুলু?’ (আমি কি আসতে পারি?) লোকটি এ কথা শুনে বললো, আসসালামু ‘আলাইকুম, আ আদখুলু? রাসূল সা. তাকে অনুমতি দিলেন এবং সে ভেতরে প্রবেশ করলো।

সুনানে আবু দাউদ, হাদিস নং ৫১৭৭

এখানে সালাম শেখানোর পাশাপাশি রাসূল শব্দেরও তারতম্য করেছেন। আলিজু আর আদখুলু একই অর্থ প্রকাশ করলেও আদখুলু শব্দটি এখানে বেশি সঙ্গত ও সুন্দর এবং শুদ্ধ। তাই রাসূল তাকে এ শব্দে অনুমতি চাইতে শিখিয়েছেন।

এখন আবার একবার কথাটি পড়ুন তো- “শুদ্ধ ভাষায় কথা বলা, সাহিত্যের অর্ধেক।”

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design Developed By : JM IT SOLUTION