1. mznrs@yahoo.com : MIZANUR RAHMAN : MIZANUR RAHMAN
  2. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
রবিবার, ০৭ অগাস্ট ২০২২, ১০:১২ অপরাহ্ন

ঈদ, পশ্চিমা সভ্যতা ও আমাদের করণীয়

  • প্রকাশিত : শনিবার, ২৩ মে, ২০২০
  • ৪৭২ জন সংবাদটি পড়েছেন।

নাঈম রুম্মানঃ

কাল বাদে পরশু ঈদ। আরবী ভাষায় ‘ঈদ’ অর্থ আনন্দ। এই দিনটি মুসলিম উম্মাহর জাতীয় উৎসব। আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন-

إن لكل قوم عيدا، وهذا عيدنا
‘অর্থাৎ সকল জাতির নিজস্ব উৎসব আছে, ঈদ হল আমাদের উৎসব।’ (বুখারী হাদীছ নং: ৯৫২)
উক্ত হাদীছে মুসলিম উম্মাহর আদর্শিক স্বাতন্ত্র্যবোধের শিক্ষা ফুটে উঠেছে। অর্থাৎ অন্যান্য জাতির পর্ব-উৎসব ভিন্ন এবং ইসলামি ঈদ-আনন্দ ভিন্ন।

এই দিনটিতে কীসের আনন্দ উদযাপিত হবে ইসলাম তাও বলে দিয়েছে– “ঈদের আনন্দ হল, আল্লাহর হুকুম পালনের আনন্দ। আল্লাহর কল্যাণকর বিধান পালনে তাওফিকপ্রাপ্ত হওয়ার ওপর শোকর করা এবং প্রভূর মহত্ত্ব ও বড়ত্ব বর্ণনা করাই ঈদের তাৎপর্য।”

কীভাবে উদযাপিত হবে তাও বলে দিয়েছে – ঈদগাহে যাওয়ার পূর্বে স্বীয় সম্পদ থেকে দরিদ্রদেরকে তাদের অধিকার বুঝিয়ে দিবে যাতে ঈদের আনন্দ বয়ে যায় ধনী-গরিব সকলের মনেপ্রাণে। অতঃপর গোসল করে সর্বোৎকৃষ্ট কাপড়ে সুগন্ধী মেখে মিষ্টিমুখ নিয়ে তাকবীর বলতে বলতে ঈদগাহে যাবে। ধনী-গরিব সকলে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে নামাজের মাধ্যমে রবের দাসত্ব প্রকাশ করবে। সম্মিলিত সিজদায় ফুটে উঠবে ইসলামী ভ্রাতৃত্বের মনোমুগ্ধকর দৃশ্য, যেখানে নেই কোনো ভেদাভেদ। রবের কুদরতি পায়ে সকলেই সমান।

পরস্পর সাক্ষাতে একে অপরকে হাসিমুখে দুআর মাধ্যমে অভ্যর্থনা জানাবে – تقبل الله منا و منك (তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়া মিনকা) সুস্বাদু খাবারের ঘ্রাণে মো মো করবে সারা বাড়ি। আনন্দের প্রতিটি প্রকাশে ইসলামি আদর্শ উদ্ভাসিত, স্বকীয়তা প্রস্ফুটিত। আহা! এর চেয়ে উত্তম আদর্শিক উদযাপন আর কী হতে পারে? এই তো হল, ঈদ উদযাপন, যা ইসলামের অন্যতম শিআর (নিদর্শন) বলাবাহুল্য: ইসলামে শিআর প্রসঙ্গটি অত্যন্ত নাযুক ও সংবেদনশীল।

অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় হল, পশ্চিমা সংস্কৃতিতে আমরা এতটাই প্রভাবিত যে, ইসলামের এই অন্যতম নিদর্শন ‘ঈদ’কে আমরা পশ্চিমাদের পদ্ধতিতে উদযাপন করি। গান-বাদ্য, তরুণ তরুণীদের অবাধ মেলামেশা, নগ্নতা ও অশ্লীলতা দিয়ে কলঙ্কিত করে ফেলি ইসলামের এই শিআরকে। এই ঈদ তো পাশ্চাত্য সভ্যতার অংশ নয়, এটা তো ইসলামের বিধান ও সৌন্দর্য! তবে কেন নিজস্ব সংস্কৃতি, সভ্যতা ও স্বকীয়তাকে জলাঞ্জলি দিয়ে পশ্চিমাদের বাতলানো পদ্ধতিতে আমরা ঈদ উদযাপন করবো? ইসলাম তো স্বকীয়তা, মূল্যবোধ ও আদর্শের ক্ষেত্রে আপোষহীনতার ইস্পাতকঠিন দৃষ্টান্ত পেশ করে।
অতএব আমাদের উচিত পাশ্চাত্য কৃষ্টি কালচার পরিহার করে ইসলামের ঈদকে ইসলামি পন্থায় উদযাপন করা এবং মুসলিম ভ্রাতৃত্বের উত্তম দৃষ্টান্ত বিশ্বমঞ্চে উন্মোচিত করা।

এক্ষেত্রে সমাজের বিত্তবানরা যেন অবশ্যই ইসলামের বিধানমতে গরীবদের পাওনা তাদেরকে বুঝিয়ে দেয়। বিত্তশালীদের কৃপণতা ও জাকাত ফেতরা আদায়ে অনীহা যেন নিম্নশ্রেণী মানুষের জন্য বিত্তহীনতা ও অভাব অনটনের কারণ হয়ে বেদনাঘন কোনো চিত্রের জন্ম না দেয়! বিশেষত সাম্প্রতিক সময়ের লকডাউনের ফলে কর্মশুন্যতা, অর্থকড়ির নগদ প্রবাহে ভাটা ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে নিম্ন আয়ের মানুষ পড়েছে ব্যাপক বিপাকে। উপর্যুপরি ঘূর্ণিঝড় ও জ্বলচ্ছাসের ফলে মানুষ এখন চরম বিপর্যয়ের মুখোমুখি। তাই দুর্যোগপূর্ণ এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে উচ্চবিত্ত ও মধ্যবিত্ত সকলের কার্যকরী ভূমিকা ও পদক্ষেপে ঈদ উপলক্ষে ইসলামি ভ্রাতৃত্বের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করা আমাদের সকলের দ্বীনি দায়িত্ব।

লেখকঃ নাঈম রুম্মান, স্বপ্নচারী টিম

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design Developed By : JM IT SOLUTION