1. mznrs@yahoo.com : MIZANUR RAHMAN : MIZANUR RAHMAN
  2. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৩:১৫ পূর্বাহ্ন

‘প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় ‘রোল মডেল’ হিসেবে বাংলাদেশের সাফল্যের জয়গান উন্নত বিশ্বেও’! – দুর্যোগ সচিব

  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই, ২০২১
  • ৫৯৩ জন সংবাদটি পড়েছেন।

‘প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় ‘রোল মডেল’ হিসেবে বাংলাদেশের সাফল্যের জয়গান উন্নত বিশ্বেও’!

আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে তথ্যনির্ভর উপস্থাপন করে  দুর্যোগ সচিব জনাব মোঃ মোহসীন এ কথা বলেন।

বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম দুর্যোগ প্রবণ দেশ। কিন্তু সময়ের গতিধারায় নানামুখী পদক্ষেপ ও কার্যকর উদ্যোগ বাস্তবায়নের মাধ্যমে দুর্যোগে প্রাণহানি, ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনার কৃতিত্বও দেখিয়েছে এ দেশটিই। ফলত ছোট থেকে বড় সব দেশই এখন প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় ‘রোল মডেল’ হিসেবে উচ্চারণ করে বাংলাদেশের নাম।

এশিয়া থেকে ইউরোপ বা আমেরিকা সব দেশের কন্ঠেই দূরদর্শী পরিকল্পনার মাধ্যমে কেবলইমাত্র বাংলাদেশের দুর্যোগ মোকাবেলার সাফল্যের জয়গান। আরও একবার দেশটির দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় সক্ষমতা দক্ষতার গল্পই সমস্বরে উচ্চারিত হয়েছে ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন (ইউসিএল)-এ দুর্যোগ সতর্কীকরণ গবেষণা কেন্দ্রের (ওয়ার্নিং রিসার্চ সেন্টার) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানেও।

বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে বুধবার (৩০ জুন) ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত এ সভায় সবকিছু ছাপিয়ে আলোচনার মূল স্পটলাইট হয়ে উঠে বাংলাদেশ।

সবার আগ্রহেই বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশের আগাম দুর্যোগ সতর্কীকরণ ব্যবস্থার উদাহরণ, অর্জন-সফলতার ম্যাজিক উপস্থাপন করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোহসীন।

ভার্চুয়ালি এখানে যুক্ত ছিলেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রতিষ্ঠানের বরেণ্য প্রতিনিধিরা।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসমূলক কার্যক্রম থেকে শুরু করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রাজ্ঞ গতিশীল নেতৃত্বে এতো ঘনবসতির দেশেও কীভাবে দুর্যোগ মোকাবেলায় বিশ্বে বাংলাদেশ অনুকরণীয় উদাহরণ তৈরি করেছে তার রাশি রাশি চিত্রপট- তথ্যের আলোকে, নিখুঁত ভাষার গাঁথুনিতেই অনবদ্য করে তোলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের এ সচিব।

কেন আগাম সতর্কীকরণ ব্যবস্থায় অনুসরণীয় বাংলাদেশ?

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোহসীন অমিত দৃঢ়তায় বলছিলেন, ‘একটা সময় ছিল যখন প্রাকৃতিক দুর্যোগে বাংলাদেশের লাখো মানুষের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। এখন তা নেমে এসেছে একক সংখ্যায়। আর সেটা শুধুমাত্র সম্ভব হয়েছে মানুষের কাছে দুর্যোগের আগাম সতর্কবার্তা পৌঁছে দেওয়ার কারণে। দুর্যোগে বাংলাদেশের এই আগাম সতর্কীকরণ ব্যবস্থা এখন সমগ্র বিশ্বে সমাদৃত এবং অনুসরণীয়।

তিনি আরও বলেন, ‘১৯৭১ সালে স্বাধীনতার পরই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ত্রাণ নির্ভর দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার পরিবর্তে দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাসমূলক কার্যক্রম গ্রহণ করেন। ১৯৭২ সালে ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি (সিপিপি) প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তিনি প্রাতিষ্ঠানিকভাবে আগাম সতর্কবার্তা প্রচার ব্যবস্থা শুরু করেন । উপকূলীয় জনগোষ্ঠীর জীবন ও সম্পদ বাঁচাতে ঘূর্ণিঝড়ের সতর্কবার্তা ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর মাঝে প্রচারে সিপিপি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।’

প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বেই ঘূর্ণিঝড়ে প্রাণহানি একক সংখ্যায়

মো. মোহসীন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু ১৮ হাজার স্বেচ্ছাসেবক নিয়ে সিপিপি’র যাত্রা শুরু করেছিলেন। যারা আগাম সতর্ক সংকেত প্রচার এবং সন্ধান ও উদ্ধার কার্যক্রমের মাধ্যমে মানুষের জানমাল রক্ষায় ব্যাপক ভূমিকা রেখে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় সিপিপি স্বেচ্ছাসেবক সংখ্যা ৭৬ হাজার ২০ জনে উন্নীত হয়েছে । এই স্বেচ্ছাসেবকদের ৫০ শতাংশই নারী ।’

সচিব আরও বলেন, ‘পুরো দেশজুড়ে আধুনিক আবহাওয়ার রাডার এবং পূর্বাভাস ব্যবস্থা রয়েছে । উপকূলে ৫ হাজারের বেশি বহুমুখী ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র রয়েছে ।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের দুর্যোগ বিষয়ে গবেষক, বিশেষজ্ঞদের কাছে এ খাতে বাংলাদেশের উদ্যোগ তুলে ধরে তিনি আরও বলেন, জরুরি পরিস্থিতিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

১৯৭০ সালের ঘূর্ণিঝড়ের ভয়াবহতার কথা উল্লেখ করে সচিব বলেন, সেই ঘূর্ণিঝড়ে ১০ লাখের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছিলেন । বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদৃষ্টিসম্পন্ন নেতৃত্বে সাম্প্রতিককালে একই মাত্রার ঘূর্ণিঝড়ে প্রাণহানি একক সংখ্যায় নেমে এসেছে।

প্রশংসায় পঞ্চমুখ অন্যরাও

দুর্যোগ সতর্কীকরণ গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক ড. কারিনা ফার্নলি বাংলাদেশের দুর্যোগ সতর্কীকরণ ব্যবস্থার সাফল্যের কারণ হিসেবে কার্যকর নীতি ও সবল প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো, উন্নত প্রযুক্তি ও দক্ষ মানবসম্পদে সমৃদ্ধ সতর্কীকরণ কেন্দ্র, মানবতার সেবায় বলীয়ান প্রশিক্ষিত স্বেচ্ছাসেবক,পর্যাপ্ত সংখ্যক আশ্রয়কেন্দ্র ও সমাজের সকলকে সম্পৃক্ত করে কাজ করার নীতির বিষয় উল্লেখ করেন ।

 

তিনি বাংলাদেশের আগাম সতর্কীকরণ ব্যবস্থা আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত ও অনুসরণীয় বলেও মন্তব্য করেন।

অনুষ্ঠানে ইউসিএল সেন্টার ফর জেন্ডার অ্যান্ড ডিজাস্টারের পরিচালক অধ্যাপক মওরিন ফর্ডহ্যাম বলেন, দুর্যোগঝুঁকি ব্যবস্থাপনার সকল পর্যায়ে নারীর নেতৃত্ব বিকাশের পরিবেশ সৃষ্টি করা জরুরি । বাংলাদেশের আগাম সতর্কীকরণ ব্যবস্থায় নারীর নেতৃত্ব বিশেষভাবে প্রশংসার যোগ্য।

আর্লি ওয়ার্নিং বিশেষজ্ঞ এলিস বেনেট বলেন, বিপূল সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবকের অংশগ্রহণের কারণে বাংলাদেশের ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি একটি বিরল উদাহরণ সৃষ্টি করেছে । এই প্রক্রিয়ায় দুর্যোগপ্রবণ দেশগুলো তাদের দুর্যোগজনিত ক্ষয়ক্ষতি কমাতে উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design Developed By : JM IT SOLUTION