1. mznrs@yahoo.com : MIZANUR RAHMAN : MIZANUR RAHMAN
  2. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ১১:২৩ পূর্বাহ্ন

শীঘ্রই ঘাটতি পূরন করবে ইভ্যালি; শতভাগ আশাবাদী রাসেল

  • প্রকাশিত : রবিবার, ১৮ জুলাই, ২০২১
  • ২৩০ জন সংবাদটি পড়েছেন।

আব্দুল্লাহ আল হাসিব: সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয় ইভ্যালির নানা অনিয়ম। বাংলাদেশ ব্যাংকের তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রতিষ্ঠানটির মোট দায় ৪০৭ কোটি টাকা। প্রতিষ্ঠানটি গ্রাহকের কাছ থেকে অগ্রিম নিয়েছে ২১৪ কোটি টাকা, আর মার্চেন্টদের কাছ থেকে বাকিতে পণ্য নিয়েছে ১৯০ কোটি টাকার। স্বাভাবিক নিয়মে প্রতিষ্ঠানটির কাছে কমপক্ষে ৪০৪ কোটি টাকার চলতি সম্পদ থাকার কথা। কিন্তু সম্পদ আছে মাত্র ৬৫ কোটি টাকা।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, কোম্পানিটি এক টাকা আয় করতে সাড়ে তিন টাকার বেশি ব্যয় করে। তাদের সম্পদের তুলনায় দেনা ছয় গুণ। ফলে তারা এই টাকা আদৌ পরিশোধ করতে পারবে কি না, তা নিয়ে সংশয় আছে। এমন তথ্য বিভিন্ন গনমাধ্যমে প্রকাশ হলে আলোচনা সমালোচনায় আসে দেশীয় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানটি।

এমন তথ্য প্রকাশের পর ইভ্যালীর বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে ইভ্যালির বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ব্যাংকের পাওয়া আর্থিক অনিয়মগুলো তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) পৃথক চিঠি পাঠায় মন্ত্রণালয়। এছাড়া, গ্রাহকদের কাছ থেকে ২১৪ কোটি টাকা অগ্রিম গ্রহণ করে পণ্য ডেলিভারি না দেওয়া ও মার্চেন্টদের ১৯০ কোটি টাকা পাওনা ফেরত দেওয়ার বিষয়ে তদন্ত করে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনকে নির্দেশ দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

চিঠির পর নড়েচড়ে বসে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গত ৮ জুলাই প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বিরুদ্ধে দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞাদেশ দেয় দুদক। সংস্থাটির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরীন ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. রাসেল গোপনে দেশত্যাগের চেষ্টা চালাচ্ছেন, এমন তথ্যের ভিত্তিতে এ নিষেধাজ্ঞা দেয় সংস্থাটি। নিষেধাজ্ঞার পর প্রয়োজনে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান।

চলতি মাসের শুরুতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা ই-কমার্স নীতিমালায় বলা হয়, গ্রাহক মূল্য পরিশোধ করার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সরবরাহকারীর কাছে পণ্য পৌঁছে দেবে বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান। এরপর তা ক্রেতাকে এসএমএস দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হবে। ক্রেতা এবং বিক্রেতা একই শহরে থাকলে মূল্য পরিশোধের ৫ দিনের মধ্যে, আর ভিন্ন শহরে থাকলে ১০ দিনের মধ্যে পণ্য সরবরাহ করতে হবে। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের ক্ষেত্রে সরবরাহের সময় আরও কম রাখতে হবে। ১০ শতাংশের বেশি অগ্রিম টাকা নেওয়া যাবে না বলেও নির্দেশনায় বলা হয়।

আরও বলা হয়েছে, বিক্রেতা কোনো কারণে নির্ধারিত সময়ে পণ্য সরবরাহ করতে ব্যর্থ হলে, ডেবিট কার্ড, ক্রেডিট কার্ড, ব্যাংক, মোবাইল ব্যাংকিং বা অন্য যে মাধ্যমে পণ্যের অগ্রিম মূল্য ক্রেতা পরিশোধ করেছেন সেই মাধ্যমেই তা ফেরত দিতে হবে।

সদ্য গৃহিত বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এ সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছে ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ রাসেল। তিনি জানান, ই-কমার্স দেশের অর্থনীতির দ্রুত সম্প্রসারণ ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারে । আমারা ইতিমধ্যে প্রমাণ করেছি যে ছাড়ই ক্রয়ের পণ্যের একমাত্র কারণ নয়। সুবিধামত সর্বোত্তম দামে পণ্য পাওয়াই ইকমার্সের লক্ষ্য।

গত বৃহস্পতিবার লকডাউন শিথিল হলে পণ্য ও অর্থ ফেরত না পাওয়া গ্রাহকরা রাজধানীর ধানমন্ডিতে ইভ্যালির কার্যালয়ে ভিড় শুরু করেন। তবে ইভ্যালির কার্যালয়টি বন্ধ আছে। হটলাইন নম্বরেও ফোন করে কাউকে পাওয়া যাচ্ছে না বলে অ’ভিযোগ করেছেন গ্রাহকেরা। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই পক্ষে-বিপক্ষে নানা মতামত তুলে ধরেন। অনেকেই মনে করেন প্রতিষ্ঠানটি হয়তো তাদের কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে।

শুক্রবার দুপুরে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব অভিযোগের ব্যাখ্যা দেয় প্রতিষ্ঠানটি। এতে জানানো হয়, বর্তমানে করোনা মহামারী সংক্রমন আশংকাজনক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় কর্মীদের নিরাপত্তার স্বার্থে ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ কার্যক্রম পরিচালনা করছে ইভ্যালির কর্মীরা। একই সাথে ডেলিভারি কার্যক্রম পুরোদমে চলমান রয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়।

এদিকে বিভিন্ন ব্যাংক তাদের ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে ইভ্যালির সঙ্গে লেনদেন স্থগিত করার পর এবার কোম্পানিটির গিফট ভাউচার গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানিয়ে নোটিশ জারি করেছে দেশের বেশ কিছু ব্র্যান্ড শপ। তবে কোন কোন ব্র্যান্ড গ্রাহকদের স্বার্থে নিষেধাজ্ঞা তুলে শপিং করার সুযোগ দিচ্ছে।

ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্ম’দ রাসেল বলেন ‘আমাদের কার্যালয় বন্ধ নেই। কল সেন্টার খোলা সকাল ৮টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত। পণ্য সরবরাহ ব্যবস্থাও চালু আছে। তবে করোনার কারণে কর্মীদের একটা অংশ বাসা থেকে কাজ করছেন। কল সেন্টারে ফোন করে কোনো সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না বলে গ্রাহকদের অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, কেউ হয়তো একটা নির্দিষ্ট সময়ে কাউকে পাননি। আর এটাকেই সাধারণ বলে চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এটা অনুচিত।

এক স্টাটাসে মোহাম্মদ রাসেল বলেন, আমাদের ওপর গ্রাহকের আস্থা এবং বিশ্বাসই আমাদের পথচলার প্রেরণা। আর সেই বিশ্বাসের বন্ধনকে আরো শক্তিশালী করতে এবং গ্রাহকের ই-শপিং অভিজ্ঞতায় নতুন মাত্রা দিতেই আমরা নিয়ে এসেছি টি১০ ক্যাম্পেইন।

তবে টি১০ ক্যাম্পেইনের পাশাপাশি পুরাতন অর্ডারগুলো ডেলিভারি চলমান রয়েছে জানিয়ে প্রতিষ্ঠানটির সিইও রাসেল বলেন, গত দুই সপ্তাহ ইভ্যালি পুরাতন অর্ডার থেকে ৪০ কোটি টাকার অধিক ডেলিভারি দিয়েছে।আমাদের এই বিজনেস ডেভেলপমেন্ট এ সবচেয়ে বড় বাধা ছিল দেশি অথবা বিদেশি বিনিয়োগ। বড় বড় সেলার আমাদের পাশে থাকতে চান।

তিনি বলেন, ইভ্যালি নিয়ে আমি শতভাগ আশাবাদী। এবং এর চেয়েও বেশি আশাবাদী ই-কমার্স নিয়ে। বিদেশী Amazon আসলে আমরা খুশি হব স্বাভাবিক। কিন্ত দেশের কেউ ইকমার্স লিড দিবে এটা আমি শতভাগ নিশ্চিত। কারণ আমরা এখন সবচেয়ে দ্রুত উন্নয়নশীল জাতি। আমাদের একটু সময় দিন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design Developed By : JM IT SOLUTION