1. mznrs@yahoo.com : MIZANUR RAHMAN : MIZANUR RAHMAN
  2. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ১১:১৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
লালমোহনের ইউএনওকে বিদায় সংবর্ধনা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এদেশে সকল ধর্মের মানুষে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করছে-এমপি শাওন চতুর্থ শ্রেণি কর্মচারী সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মরহুম আব্দুল আজিজ এর ৩৩তম মৃত্যুবার্ষিকী অনুষ্ঠিত শেখ হাসিনার কল্যাণে তলাবিহীন ঝুড়ির দেশ থেকে আজকে সম্ভাবনাময় বাংলাদেশ হয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ.এম.এইচ কলেজে টি-২০ প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত।। দেশ আলো নগরীর নথুল্লাবাদ থেকে কৌশলে পাখি উদ্ধার করলো AWB -দেশ আলো ছাত্রীকে যৌন হেনস্তার দায়ে প্রধান শিক্ষক গ্রেফতার বরিশাল বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালককে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান সিভিল সার্জন ডা: মারিয়া হাসান বর্ণাঢ্য আয়োজনে লালমোহনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন পালিত বিশ্ব পর্যটন দিবস আজ।। দেশ আলো

উচ্চবিত্ত-উচ্চমধ্যবিত্ত ছাড়া সবাই কষ্টে আছে

  • প্রকাশিত : বুধবার, ২৪ আগস্ট, ২০২২
  • ৪৯ জন সংবাদটি পড়েছেন।

আমার নিজের আয়ের উৎস উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া ভবনের ভাড়া ও সঞ্চয়পত্রের মুনাফা। আমি দেখছি, ভাড়া নিতে মানুষ আসছে। তবে করোনাকালের আগের হারে তাঁরা ভাড়া দিতে পারছেন না। সঞ্চয়পত্রের মুনাফা থেকেও মানুষের আয় কমেছে।
সরকার গত বছরের নভেম্বরের দিকে একবার জ্বালানি তেলের দাম বাড়াল। তখন থেকে কিন্তু মূল্যস্ফীতিটা শুরু হলো। তখন পরিবহনভাড়া এক দফা বেড়েছিল। এ মাসে আবার জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হলো।

সরকার জ্বালানি তেল, গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির একচেটিয়া ব্যবসা করে। কেন এই পণ্যগুলোর ব্যবসা সরকার করে? কারণ হলো, এসব পণ্যকে কৌশলগত পণ্য হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সরকার এসব পণ্যের ব্যবসা করে, কারণ—অর্থনীতির চাকা সচল রাখার জন্য পণ্যগুলোর সরবরাহ পরিস্থিতি স্থিতিশীল রাখা দরকার। এবং দাম সাশ্রয়ী রাখা জরুরি। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, সরকার অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখা বা মানুষকে স্বস্তির মধ্যে জীবনযাপনের সুযোগ দেওয়ার জন্য এ ব্যবসা করছে না।

অতীতে আমরা দেখেছি, সরকার জ্বালানি তেল অনেক ভর্তুকি দিয়ে বিক্রি করেছে। ২০০৮ ও ২০০৯ সালে যখন তেলের দাম অনেক বেশি ছিল, তখন সরকার ভর্তুকি দিয়েছে। ২০১৪ সালের দিকে যখন জ্বালানি তেলের দাম কমে গেল, সরকার তখন দাম কিছুটা কমিয়ে দিল। বলল, দাম যদি আরও কমে তারাও কমাবে। কিন্তু এর পরে আর দাম কমায়নি।

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) চেয়ারম্যানসহ অন্য কর্মকর্তাদের কথা ও গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে যা দেখি, গত পাঁচ-ছয় বছরে বিপিসি বহু টাকা মুনাফা করেছে। মুনাফার পরিমাণ ৪২ হাজার কোটি টাকা। তারা কিছু প্রকল্প নিয়েছে। সেই প্রকল্পগুলো কতটুকু জরুরি ছিল, কতটুকু জ্বালানি নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজন ছিল, সেগুলো পরীক্ষা করে দেখা দরকার।

এবার যখন সরকার জ্বালানি তেলের দাম বাড়াল, তখন ৮ থেকে ১০ হাজার কোটি টাকা লোকসানের কথা বলা হলো। তারা বলেছে, এ লোকসান মেটানোর জন্য তিনটি স্থায়ী আমানত ভাঙা হয়েছে। এ টাকা কোথা থেকে এল? এ আমানত তো লাভের টাকা।

সরকার ব্যবসা করে লাভ-লোকসান করার জন্য নয়। সরকারের যে ব্যবসা, তা অর্থনীতি স্থিতিশীল রাখা, মানুষকে স্বস্তিতে, শান্তিতে রাখার জন্য। এবার পেট্রল-অকটেনের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে মাসে ২০৫ কোটি টাকা মুনাফা ধরে। তার মানে যে উদ্দেশ্যে সরকার ব্যবসা করে, সেই উদ্দেশ্য তারা সম্পূর্ণরূপে ভুলে গেছে। তাদের ব্যবসা এখন লাভের জন্য। লাভের জন্য তো সরকারের ব্যবসা করার কথা নয়।
সরকারের ব্যবসার যেটা মূল দর্শন, সেটা যদি মনে না রাখি, তাহলেই কিন্তু অর্থনীতিতে নানা রকমের সংকট সৃষ্টির আশঙ্কা থাকে। এখন যেটা হয়েছে, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণে সবকিছুর দাম বেড়ে গেছে, এটা তারই প্রতিফলন।

গোলাম রহমান: সভাপতি, ক্যাব এবং সাবেক চেয়ারম্যান, দুর্নীতি দমন কমিশন

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design Developed By : JM IT SOLUTION