1. mznrs@yahoo.com : MIZANUR RAHMAN : MIZANUR RAHMAN
  2. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ১০:৪২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
লালমোহনের ইউএনওকে বিদায় সংবর্ধনা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এদেশে সকল ধর্মের মানুষে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করছে-এমপি শাওন চতুর্থ শ্রেণি কর্মচারী সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মরহুম আব্দুল আজিজ এর ৩৩তম মৃত্যুবার্ষিকী অনুষ্ঠিত শেখ হাসিনার কল্যাণে তলাবিহীন ঝুড়ির দেশ থেকে আজকে সম্ভাবনাময় বাংলাদেশ হয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ.এম.এইচ কলেজে টি-২০ প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত।। দেশ আলো নগরীর নথুল্লাবাদ থেকে কৌশলে পাখি উদ্ধার করলো AWB -দেশ আলো ছাত্রীকে যৌন হেনস্তার দায়ে প্রধান শিক্ষক গ্রেফতার বরিশাল বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালককে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান সিভিল সার্জন ডা: মারিয়া হাসান বর্ণাঢ্য আয়োজনে লালমোহনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন পালিত বিশ্ব পর্যটন দিবস আজ।। দেশ আলো

সরকারি কর্মচারীদের গ্রেফতার করতে অনুমতি নেওয়ার বিধান বাতিল করেছে হাইকোর্ট

  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২৫ আগস্ট, ২০২২
  • ৩৬ জন সংবাদটি পড়েছেন।

সুপ্রিমকোর্ট ডেস্ক :

সরকারি কর্মচারীরা ফৌজদারি অপরাধ করলেও তাদের গ্রেফতার করতে সরকার বা নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের অনুমতি নেওয়ার বিধান বাতিল করেছে হাইকোর্ট।বৃহস্পতিবার (২৫ আগস্ট) বিচারপতি মো.মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন।

আদালত বলেছেন, সরকারি কর্মচারীদের গ্রেফতারে পূর্বানুমতির বিধান বেআইনি, সংবিধান ও মৌলিক অধিকার পরিপন্থী।

২০১৮ সালে প্রণীত সরকারি চাকরি আইনের ৪১(১) ধারায় বলা হয়েছে, ‘কোনো সরকারি কর্মচারীর দায়িত্ব পালনের সহিত সম্পর্কিত অভিযোগে দায়েরকৃত ফৌজদারি মামলায় আদালত কর্তৃক অভিযোগপত্র গৃহীত হইবার পূর্বে তাহাকে গ্রেফতার করিতে হইলে সরকার বা নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের পূর্বানুমতি গ্রহণ করিতে হইবে।’

২০১৩ সালে জাতীয় সংসদে দুর্নীতি দমন কমিশন সংশোধন বিল, ২০১৩ পাশ হয়। এতে নতুন করে ৩২(ক) ধারা যুক্ত করে বলা হয়, এই আইনের অধীনে জজ, ম্যাজিস্ট্রেট বা সরকারি কর্মচারীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৯৭ ধারা আবশ্যিকভাবে পালন করতে হবে। ফলে সরকারের অনুমোদন ছাড়া সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী, জজ, ম্যাজিস্ট্রেটের বিরুদ্ধে দুদক কোনো মামলা করতে পারবে না। এই ধারা চ্যালেঞ্জ করে ঐ বছরই হাইকোর্টে রিট করেন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষে মনজিল মোরসেদ। ২০১৪ সালে ঐ রিটের রায়ে হাইকোর্ট সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে সরকারের অনুমতি-সংক্রান্ত দুদক আইনের ৩২(ক) ধারা অবৈধ ও সংবিধান পরিপন্থী বলে ঘোষণা করে।

রায়ে বলা হয়, সংবিধানের ২৭ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী আইনের দৃষ্টিতে সবাই সমান। সংবিধানের ২৬(২) অনুচ্ছেদ অনুসারে মৌলিক অধিকারের সঙ্গে অসামঞ্জস্যপূর্ণ আইন বাতিল হবে। সংবিধানের ৭(২) অনুচ্ছেদ অনুসারে কোনো আইন যতখানি সংবিধানের সঙ্গে অসামঞ্জস্যপূর্ণ, ততটুকু বাতিল হবে। তাই সংশোধিত দুদক আইনের ৩২(ক) ধারায় একটি শ্রেণিকে বিশেষ সুবিধা দেওয়া হয়েছে, যা সংবিধানের ২৭ অনুচ্ছেদের পরিপন্থী। সে কারণে ঐ ধারা আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ও বাতিলযোগ্য বলে ঘোষণা করা হলো।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design Developed By : JM IT SOLUTION