1. mznrs@yahoo.com : MIZANUR RAHMAN : MIZANUR RAHMAN
  2. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০:০৯ পূর্বাহ্ন

লোভনীয় মুনাফার প্রতারণায় সর্বস্বান্ত সহস্রাধিক গ্রাহক

  • প্রকাশিত : সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৮২ জন সংবাদটি পড়েছেন।
লোভনীয় মুনাফার ফাঁদে ফেলে মানুষের কাছ থেকে বিপুল অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে নওগাঁর ডলফিন সেভিংস অ্যান্ড ক্রেডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড নামের একটি বেসরকারি সংস্থা
লোভনীয় মুনাফার ফাঁদে ফেলে মানুষের কাছ থেকে বিপুল অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে নওগাঁর ডলফিন সেভিংস অ্যান্ড ক্রেডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড নামের একটি বেসরকারি সংস্থা

অনলাইন ডেস্ক: 

লোভনীয় মুনাফার ফাঁদে ফেলে মানুষের কাছ থেকে বিপুল অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে নওগাঁর ডলফিন সেভিংস অ্যান্ড ক্রেডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড নামের একটি বেসরকারি সংস্থা। লাভের আশায় সংস্থাটিতে জীবনের শেষ সঞ্চয়টুকু গচ্ছিত রেখে সর্বস্বান্ত হয়েছেন সহস্রাধিক গ্রাহক। গত শনিবার এই অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুর রাজ্জাকসহ ছয়জনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব। এরপর গতকাল রোববার তাঁদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

ভুক্তভোগী গ্রাহক ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, লোভনীয় মুনাফার ফাঁদে পড়ে প্রতিষ্ঠানটিতে টাকা গচ্ছিত রেখে সর্বস্বান্ত হওয়া ভুক্তভোগীরা প্রায় সবাই নিম্ন আয়ের মানুষ। তাঁদের অধিকাংশই ক্ষুদ্র কৃষক, দিনমজুর, রিকশাচালক, ভ্যানচালক ও ছোটখাটো ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহ করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নওগাঁ সদর উপজেলার ফতেপুর বাজারে ২০১৩ সালে সমবায় অধিদপ্তর থেকে নিবন্ধন নিয়ে সংস্থাটি গড়ে তোলেন একই গ্রামের বাসিন্দা আবদুর রাজ্জাক। তিনি প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন। ফতেপুর বাজারের একটি ভবনে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে গ্রামের মানুষের কাছ থেকে টাকা নিয়ে স্থায়ী আমানত ও ক্ষুদ্র সঞ্চয় কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল সংস্থাটি। কার্যালয়ে ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ ২০-২৫ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী ছিলেন। অন্য প্রতিষ্ঠানের চেয়ে বেশি লাভ দেওয়ার কথা বলে প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা-কর্মচারীরা গ্রামের মানুষদের তাঁদের প্রতিষ্ঠানে টাকা জমা রাখার পরামর্শ দেন। এসব কথায় বিশ্বাস করে শুরুর দিকে কিছু মানুষ প্রতিষ্ঠানটিতে আমানত হিসেবে টাকা গচ্ছিত রাখেন। তখন গ্রাহকদের আমানতের বিপরীতে নিয়মিত লভ্যাংশ দেওয়া হচ্ছিল। ধীরে ধীরে প্রতিষ্ঠানটিতে গ্রাহকসংখ্যা বাড়তে থাকে।

ভুক্তভোগীরা জানান, বাড়তি লাভের আশায় কেউ মেয়ের বিয়ের জন্য জমানো টাকা, কেউ বিদেশে যাওয়ার জন্য জমানো টাকা, আবার কেউ গরু-ছাগল বিক্রি করে, দিনমজুরি করে টাকা আয় করে সঞ্চয় রেখেছিলেন প্রতিষ্ঠানটিতে। কাগজে-কলমে আমানত জমা রেখেছেন, এমন গ্রাহকের সংখ্যা ছয় শতাধিক। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে আমানতের বিপরীতে লভ্যাংশ দেওয়া বন্ধ হয়ে যায়। এর পর থেকে আমানতকারীরা টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য সংস্থাটির কর্মকর্তাদের চাপ দিতে শুরু করলে ১০ ফেব্রুয়ারি থেকে প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ হয়ে যায়। ওই দিন থেকেই সংস্থাটির ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ প্রতিষ্ঠানটির অন্য কর্মকর্তারা লাপাত্তা হন। এমন অবস্থায় ভুক্তভোগীরা প্রতিকারের আশায় জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দেন।

ডলফিন সেভিংস অ্যান্ড ক্রেডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেডে টাকা জমা রেখে সর্বস্বান্ত হতে বসেছেন সদর উপজেলার ফতেপুর গ্রামের বাসিন্দা দিনমজুর আলম হোসেন। তিনি বলেন, অন্যের জমিতে কাজ করে সংসার চলে তাঁর। দিন এনে দিন খাওয়া অবস্থা। দুই মেয়ের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে চার বছর ধরে এ সংস্থায় দেড় লাখ টাকা সঞ্চয় করেছিলেন তিনি। কিন্তু জমানো টাকা কবে নাগাদ ফেরত পাবেন কিংবা আদৌ পাবেন কি না, তা নিয়ে এখন দুশ্চিন্তায় আছেন।

সাইদুল ইসলাম নামের একজন নরসুন্দর বলেন, ‘চুল কাটার কাজ করে সংসারের খরচ চালানোর পাশাপাশি এক লাখ টাকা ডলফিন এনজিওতে গচ্ছিত রাখছিলাম। প্রতি মাসে দুই হাজার টাকা করে লাভ পেতাম। কিন্তু জানুয়ারি থেকে সেই টাকা পাওয়া বন্ধ হয়ে যায়। কয়েক দিন ধরে তো অফিসই বন্ধ। এনজিওর মালিকসহ আরও কয়েকজন গ্রেপ্তার হয়েছে। লাভ এখন আর চাই না। জমানো টাকা ফেরত পেলেই খুশি। আর কিছুই না পেলে আমার স্বপ্ন-আশা সব শেষ হয়ে যাবে।’

গ্রেপ্তার আবদুর রাজ্জাকের গ্রামের বাড়ি সদর উপজেলার ফতেপুর পূর্ব পাড়ায় গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির মূল ফটকে তালা মারা। তাঁর বাবা-মা বড় ভাইয়ের বাড়িতে বসবাস করছেন। আবদুর রাজ্জাকের মা মরজিনা বেগম বলেন, তাঁর ছেলে আগে বিদেশে ছিলেন। বিদেশ থেকে আসার পর একটি এনজিও খোলেন। আবদুর রাজ্জাক কার কাছ থেকে কত টাকা নিয়েছেন, সে ব্যাপারে তাঁরা কিছুই জানেন না।

নওগাঁ জেলা সমবায় কর্মকর্তা খোন্দকার মনিরুল ইসলাম বলেন, গত বছরের জুনে ওই সংস্থা পরিদর্শন করে ৩৮ লাখ টাকা আমানতের তথ্য পাওয়া যায়। কাগজে-কলমে ওই সংস্থার গ্রাহকের সংখ্যা ছয় শতাধিক। তবে সংস্থার সাইনবোর্ড ব্যবহার করে ব্যক্তিগতভাবে নথি ছাড়া কারও কাছ থেকে টাকা নিয়ে আত্মসাতের জন্য লেনদেন করেছে কি না, বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তে টাকা আত্মসাতের সত্যতা পাওয়া গেলে ওই সংস্থার নিবন্ধন বাতিলসহ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। গ্রাহকের করা মামলায় আদালত তথ্য চাইলে সেখানেও তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design Developed By : JM IT SOLUTION