1. mznrs@yahoo.com : MIZANUR RAHMAN : MIZANUR RAHMAN
  2. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ০১:৫০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
আগরপুর ইউনিয়নে আনারস প্রতীকের গণজোয়ার আলহাজ্ব মকবুল হোসেনের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী পালিত রাজাপুরে সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে পুলিশ চট্টগ্রাম হাইওয়ে সার্কেল পরিদর্শন করলেন ডিআইজি মাহ্ফুজুর রহমান কুমিল্লা রিজিয়ন ও ময়নামতি হাইওয়ে থানা তদন্ত ও প্রসিকিউশন দাখিলে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করলেন অতিরিক্ত ডিআইজি খাইরুল আলম বরিশালে ‘নো হেলমেট, নো ফুয়েল’ কার্যক্রম বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে ট্রাফিক পুলিশ আলহাজ্ব মকবুল হোসেন কলেজ ক্যাম্পাসে ফুটপাতে চাঁদাবাজি।। দেশ আলো বরিশালে এপিবিএন নার্সারীর শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত নড়াইলে মল্লিকপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যানকে গুলি করে হত্যা ঢাকার আকাশ মেঘাচ্ছন্ন। নেমেছে বৃষ্টি।

রাজপথের অগ্নিকন্যা মনীষা চক্রবর্তীর আজ শুভ জন্মদিন

  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ৫ এপ্রিল, ২০২৪
  • ১০৯ জন সংবাদটি পড়েছেন।

আব্দুল্লাহ আল হাসিব, বরিশাল ॥ বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও বরিশাল জেলা শাখার সংগ্রামী সমন্বয়ক ডাঃ মনীষা চক্রবর্ত্তীর শুভ জন্মদিন আজ। জন্মদিনে রাজনৈতিক অঙ্গনের বাইরেও নানা শ্রেনী পেশার মানুষ জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

ডাঃ মনীষা চক্রবর্তীর জন্ম বরিশাল নগরীর শ্রীনাথ চ্যাটার্জী লেনের পৈত্রিক বাড়িতে। নগরীতেই তার বেড়ে ওঠা। তার বাবা আইনজীবী তপন কুমার চক্রবর্তী ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের ৯ নম্বর সেক্টরের বীর মুক্তিযোদ্ধা। মা রিনা চক্রবর্তী গৃহিণী। তিন বোনের মধ্যে ডাঃ মনীষা চক্রবর্তী সর্বকনিষ্ঠ।

নারীর প্রতি সহিংসতা, সবধরনের নিপীড়ন ও বৈষম্যের লড়াই করে যাচ্ছেন ডাঃ মনীষা চক্রবর্তী। শুধু নারীদের অধিকার আদায়ে-ই নয়; তনু হত্যার প্রতিবাদে বরিশালে ছাত্র ধর্মঘটসহ ধারাবাহিক আন্দোলন, সারাদেশে সন্ত্রাস-দখলদারিত্ব, নারী নির্যাতন বিরোধী আন্দোলন ও শ্রমজীবী মেহনতি মানুষের অধিকার আদায়ে তিনি সব সময়ই রাজপথে ছিলেন সোচ্চার ও অগ্রণী ভূমিকায়।

মনীষা চক্রবর্তী দাদা বিশিষ্ট আইনজীবী সুধীর কুমার চক্রবর্তীকে একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে অবস্থান নেয়ায় স্থানীয় রাজাকার বাহিনী নৃশংসভাবে হত্যা করে। অসংখ্য প্রগতিশীল মানুষদের সানিধ্যে বেড়ে ওঠা ডাঃ মনীষার ছোটবেলা অতিবাহিত হয় ফুপা লেখক ও নিসর্গবিদ দ্বিজেন শর্মার সংস্পর্শে। এইচএসসি পাশের পর মনীষা চক্রবর্তী ভর্তি হন বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজে। ওই কলেজে পড়ার সময় তিনি যুক্ত হন বাসদের রাজনীতিতে। তিনি বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল বরিশালের সদস্য সচিব। বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ থেকে কৃতিত্বের সাথে তিনি এমবিবিএস পাস করেন।

মেডিক্যালে লেখাপড়া শেষ করে ৩৪তম বিসিএসে স্বাস্থ্য ক্যাডারে সহকারী সার্জন পদে নিয়োগ পেয়েছিলেন মনীষা চক্রবর্তী। যার হাতে থাকার কথা ছিলো-স্টেথোস্কোপ সার্জারির যন্ত্রপাতি। যার থাকার কথা ছিলো হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারে রোগীদের চিকিৎসা নিয়ে জনগণের সেবায়। সেই মনীষা চক্রবর্তী আজ রাজপথে-রাজনীতির মাঠে। সরকারী চাকরিতে যোগ না দিয়ে তিনি বিনা পয়সায় গরীব মানুষদের চিকিৎসা দিয়ে থাকেন। নারী, শিশু ও শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য রাজপথে আন্দোলনে থাকেন। এ কারণে বরিশালের শ্রমিকদের কাছে তিনি বেশ জনপ্রিয়। শ্রমিক ও বস্তিবাসীর কাছে তিনি ‘দিদি’ নামে পরিচিত। আবার কারও কাছে তিনি পরিচিত গরিবের ডাক্তার নামে।

রাজনীতিতে নানা পথচলায় নানা চড়াই-উতরাই পেরোতে হয়েছে ডাঃ মনীষা চক্রবর্তীকে। বরিশালের রাজনৈতিক অঙ্গনে রাজপথে নেতৃত্ব দিয়ে আন্দোলন সংগ্রাম করা নারী সংখ্যা খুব বেশি নেই। একজন নারী হয়ে রাজপথে আন্দোলন, সংগ্রাম, হরতালে পিকেটিং অনেকেই ভালো চোখে দেখেনি। প্রথম প্রথম নারী নেতা বলে অনেকেই ব্যঙ্গ করতো। হাসি-তামাশাও করেছে অনেকে কিন্তু লক্ষ্যে অবিচল ছিলেন মনীষা। কারও সমালোচনাকে তিনি পাত্তা দেননি। প্রতিবাদী কর্মকান্ডের কারণে হামলা, মামলা ও কারাভোগও করতে হয়েছে ডাঃ মনীষা চক্রবর্তীকে।

বরিশাল নগরী থেকে ব্যাটারিচালিত রিকশা উচ্ছেদের প্রতিবাদে যখন শ্রমিকরা শহরে মিছিল বের করেন, তাদের সাথে ছিলেন মনীষাও। সেদিন পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। পরে জামিনে কারাগার থেকে মুক্তি পান তিনি। রাজপথে আন্দোলন সংগ্রাম করতে গিয়ে তাকে অসংখ্যবার লাঠিপেটা, মারধর ও হেনস্তার শিকার হতে হয়েছে। তার পরেও অদম্য মনোবল এবং সাহসিকতার কারণে তিনি রাজনীতি ছেড়ে পিছপা হননি। বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে প্রথম নারী মেয়র প্রার্থী হিসেবে লড়েছিলেন ডাঃ মনীষা চক্রবর্তী। চরম আর্থিক সঙ্কটও তাকে দমাতে পারেনি। ডাঃ মনীষার নির্বাচনী ব্যয় নির্বাহ হয়েছে নগরীর খেটে খাওয়া দিনমজুরদের মাটির ব্যাংকে সঞ্চয় করা টাকায়। মেহেনতি মানুষ তাদের মাটির ব্যাংকের সঞ্চয়ী অর্থ তুলে দিয়েছিলেন ডাঃ মনীষা চক্রবর্তীর হাতে। সেই অর্থেই তিনি লড়েছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীদের সাথে।

নারীরা ভাবেন, স্বপ্ন দেখেন কিন্তু সেটার বাস্তব রূপ দিতে সাহস পাচ্ছেন না। সেই স্বপ্ন বাস্তবে রূপ দিতে ও মনোবল বাড়াতে তিনি আজীবন লড়াই করে যাবেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design Developed By : JM IT SOLUTION