1. mznrs@yahoo.com : MIZANUR RAHMAN : MIZANUR RAHMAN
  2. jmitsolutionbd@gmail.com : jmmasud :
শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৫৮ পূর্বাহ্ন

বরিশালের আকাশে উড়বে না ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্স।। দেশ আলো

  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ১৫৬ জন সংবাদটি পড়েছেন।

আব্দুল্লাহ আল হাসিব, বরিশাল:

পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর থেকে যাত্রী সংকটকে পুঁজি করে ঢাকা-বরিশাল আকাশ পথে সীমিত পরিসরে সেবা দিচ্ছে; কখনো সার্ভিস বন্ধ করে দিচ্ছে এ রুটের বেসরকারি এয়ারলাইন্সগুলো। তারই ধারাবাহিকতায় নভোএয়ারের পর একই পথে হাঁটছে বেসরকারি এয়ারলাইন্স ইউএস-বাংলা।

আজ (৭ সেপ্টেম্বর) থেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে ঢাকা-বরিশাল রুটের ফ্লাইট বন্ধ করে দিয়েছে ইউএস-বাংলা। ফলে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী উড়োজাহাজ সংস্থা বিমান বাংলাদেশ একই পথে হাঁটলে পুরোপুরি বন্ধ হবে যাত্রীদের বরিশালের আকাশে ওড়া।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বরিশাল বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের কাউন্টারটি ঢেকে রাখা হয়েছে।

সংস্থাটির গণসংযোগ বিভাগের মহাব্যবস্থাপক (জিএম)
কামরুল ইসলাম বলেন, আমরা ধারবাহিকভাবে লোকসান দিচ্ছি। যাত্রী সংকটের কারণে এটা হচ্ছে। এজন্য আপাতত সার্ভিস বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।
তবে ঢাকা-বরিশাল রুটে ফ্লাইট স্থায়ীভাবে বন্ধ হচ্ছে না। আমরা আসলে এই রুটে অনেক চেষ্টা করছি ফ্লাইট চালু রাখার। এতদিন ফ্লাইট চালু রেখেছিলাম আমরা। যেহেতু ইউএস-বাংলা বেসরকারি এয়ারলাইন্স, কাজেই দীর্ঘদিন লসে থেকে ফ্লাইট চালানো সম্ভব নয়।

গত এক বছরের যাত্রী পরিবহণ পরিসংখ্যান তুলে ধরে তিনি বলেন, এটা ঠিক যে কয়েক মাস ধরে যাত্রী বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে বছরান্তের হিসাবে লাভের দেখা মিলছে না। তাছাড়া বিমানবন্দরসহ বিভিন্ন খাতে ট্যাক্স বাড়ানো হয়েছে। বেড়েছে জ্বালানি তেলের দামও। সবমিলিয়ে হিমশিম খাচ্ছি। তাই বাধ্য হয়ে বন্ধ করা হচ্ছে ফ্লাইট।সামনের শীত মৌসুমে এ রুটে পুনরায় ফ্লাইট চালু করার ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেন সংস্থাটির এই মহাব্যবস্থাপক।

তবে ইউএস-বাংলার এই বক্তব্য মানতে নারাজ বরিশাল চেম্বার অব কমার্সের প্রেসিডেন্ট সাইদুর রহমান রিন্টু। তিনি বলেন, চরম যাত্রী সংকটের পরও লঞ্চ চালানো বন্ধ করেননি মালিকরা। সেখানে পরিপূর্ণ যাত্রী হওয়ার পরও কেন উড়োজাহাজের সার্ভিস বন্ধ করা হচ্ছে, তা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন। জনসেবা খাতে সব সময় লাভের আশা নিয়ে ব্যবসা করা যায় না।

প্রতিষ্ঠানগুলো এ রুটে যাত্রী সংকটের অজুহাত দেখালেও পরিসংখ্যান তা বলছে না। বরং মুনাফার জন্য অন্য রুটে বেশি ফ্লাইট পরিচালনার জন্য বিমান সংস্থাগুলো বরিশাল রুট বন্ধ করে দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা। তাদের দাবি, বরিশাল যে লোকসানি রুট নয়; তার প্রমাণ গত বুধবার ইউএস-বাংলার সর্বশেষ ফ্লাইট। ৭২ আসনের বিমানটি পরিপূর্ণ যাত্রী নিয়ে বরিশালে পৌঁছায় এবং ৫৬ যাত্রী নিয়ে ঢাকায় গেছে। তাদের এক বছরের পরিসংখ্যান বলছে, ধারণ ক্ষমতার প্রায় ৮৮ ভাগ যাত্রী নিয়েই এই রুটে চলাচল করেছে ইউএস-বাংলার ফ্লাইট।

পর্যবেক্ষকরা মনে করেন, ঢাকা-বরিশাল দেশের অন্য যে কোনো উড়াল পথের চেয়ে লাভজনক। মাত্র ৬১ অ্যারোনটিক্যাল মাইলের এই দূরত্বটুকু পার করতে সাড়ে ৩ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত ভাড়া নেয় বিমান সংস্থাগুলো। এরপরও বিমান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে ভোগান্তির শেষ থাকবে না তাদের।

তথ্য বলছে, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত ধারণ ক্ষমতার ৮৪ ভাগ যাত্রী বহন করে ইউএস-বাংলা। কেবল জুলাই মাসেই ধারণক্ষমতার ৯২ ভাগ যাত্রী ওঠে তাদের উড়োজাহাজে। এরপরও ফ্লাইট বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে এয়ারলাইন্সটি। এক বছর আগেও ঢাকা-বরিশাল আকাশপথে দৈনিক ১১টি ফ্লাইট ওঠানামা করেছিল।

মূলত, পদ্মা সেতু চালুর পর থেকেই আকাশপথে যাত্রী কমেছে ঢাকা-বরিশাল রুটে। ২০১৫ সাল থেকে ঢাকা-বরিশাল-ঢাকা আকাশপথে নিয়মিত ফ্লাইট চালাচ্ছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। এখন সপ্তাহে তিনদিন বাংলাদেশ বিমান ও সপ্তাহে ৭ দিন ইউএস বাংলার একটি করে ফ্লাইট চলাচল করছিল।

ফ্লাইটগুলোর যাত্রী পরিবহনের ডাটা বেজ থেকে দেখা যায়, ঢাকা-বরিশাল-ঢাকা রুটে জানুয়ারি মাসে ইউএস-বাংলা যাত্রী পেয়েছে নির্ধারিত আসনের ৮৮ শতাংশ। একই সময় বাংলাদেশ বিমান পেয়েছে ৪০ শতাংশ। ফেব্রুয়ারি মাসে ইউএস-বাংলা ৯৩; বিমান ৫১, মার্চ মাসে ইউএস-বাংলা; বিমান ৪০, এপ্রিল মাসে ইউএস-বাংলা ৭১;বিমান ৫৫, মে মাসে ইউএস-বাংলা ৪১; বিমান ৪৩, জুন মাসে ইউএস-বাংলা ৪০; বিমান ৪২, জুলাই মাসে ইউএস-বাংলা ৮৫;বিমান ৫১ এবং আগস্ট মাসে ইউএস-বাংলা ৬৫ ও বিমান ৪২ শতাংশ যাত্রী পরিবহন করেছে। একই সাথে সাড়ে ৮ লাখ লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আগস্ট মাসে বরিশাল থেকে বাংলাদেশ বিমানের আয় ছিল প্রায় এক কোটি ৫ লাখ টাকা। জুলাই মাসে আয় ছিল ৪৭ লাখ টাকা।

অসমর্থিত সূত্র জানিয়েছে, ঢাকা-চেন্নাই রুটে ফ্লাইট চালুর জন্য ইউএস-বাংলা বরিশাল রুটটি বন্ধ করে দিয়েছে। তবে বিষয়টি অস্বীকার করে ইউএস-বাংলার এক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, ঢাকা-বরিশাল রুটে ভাড়া ছিল ৩ হাজার ২০০ টাকা। এর মধ্যে সরকারি ট্যাক্স দিতে হয় ৯২৫ টাকা। আগে ছিল ৭২৫ টাকা। সর্বশেষ জাতীয় বাজেটে ২০০ টাকা ট্যাক্স বৃদ্ধি করায় আমাদের লোকসানে পড়তে হয়েছে। এ কারণে আপাতত বরিশাল-ঢাকা রুটে ফ্লাইটসেবা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে বরিশালে ইউএস-বাংলার অফিস চালু থাকবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design Developed By : JM IT SOLUTION